দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি বা দ্রব্যে ভেজাল মেশানোর পিছনে কারা।

Ad

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি বা দ্রব্যে ভেজাল মেশানোর পিছনে কারা।


বাংলাদেশে বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বড় একটি সমস্যা বলা চলে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি কিন্তু কী কারণে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পাচ্ছে এর পিছনে কারা আছে এই বিষয়ে সাধারণ জনগন জানতে পারে না । সাধারণ জনগন শুধু পণ্য ক্রয় করে আর ভোগ করে । দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি পেলে কি আর না পেলে  কি,  নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যগুলো জনগণকে ক্রয়করতে হয় এবং ক্রয় না করে উপায়ও নেই কিন্তু এই দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির মূল কারণ হিসেবে বলা চলে পাইকার বা মধ্যস্তকারীরা বিভিন্ন সময়ে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে বেশি মুনাফা লাভের আশায় দ্রব্যমুল্য বাড়িয়ে দেয় যার ফলে ভোগান্তিতে পরে  সাধারণ জনগন । সম্প্রতি বাংলাদেশের পিয়াজের দাম বৃদ্ধির কারণ হিসাবে বলা চলে পিয়াজের চাহিদার চেয়ে যোগান কম এবং এমন সময়ও কিছু কিছু ব্যবসায়ি কৃত্রিম সংকট তৈরির চেষ্টা করে যার ফলে আমরা দেখেছি প্রায় ২৫০ টাকা পর্যন্ত. প্রতি কেজি পিয়াজের দাম  ছিল যেটি বাংলাদেশে নজির বিহীন ঘটনা কিন্তু নিত্য প্রয়োজনিয় দ্রব্যের যখন দাম বেরে যায় বা পণ্যের সংকট থাকে তখন কি সরকারের কিছু করার থাকে না , অবশ্যই থাকে সরকার ইচ্ছা করলে ভুর্তকি দিতে পারে যাতে করে সাধারণ জনগন এইসব সমস্যার সমাধাণ পায় । আনেক সময় আমরা বাজারে দেখি দ্রব্যের মূল্যের চেয়ে অনেক বেশি নেওয়া হচ্ছে অবশ্য এইসব প্রতিরোধের জন্য ভ্রাম্যমান আদালত শহর এলাকাতে সজাগ থাকলেও প্রত্যন্ত অঞ্চলে তেমন কোনো প্রভাব নেই তবে অচিরে মনে হচ্ছে এই সব সমস্যার সমাধান হবে । এখন সাধারণ জনগন একটু সচেতন হলে ভোক্তা অধিকার আইনে যদি কেউ কোনো পণ্যের মূল্য  বেশি  নিয়ে থাকে তবে তার বিরুদ্ধে মামলা করতে পারবে কিন্তু জনগনের সচেতনতার অভাবে সেটি হচ্ছে না । 
এখন আসি দ্রব্যের ভেজাল নিয়ে ভেজাল বলতে চালের মধ্যে শুধু বালি বা অন্য কোনো পর্দাথ মিশ্রণ করাকে  বোঝায় না খাদ্যের মধ্যে বিভিন্ন প্রকার রাসায়নিক দ্রব্য মেশানোকেও ভেজাল বলে । বর্তমান সময়ে আমাদের প্রয়োজনীয় খাদ্যগুলোতে মাত্রাতিক্ত পরিমাণ রাসায়নিক মেশানো  থাকে যার ফলে এইসব ভেজাল খাদ্য খেলে বিভিন্ন ধরনের রোগে ভোগে সাধারণ জনগন।  এইসব বিষয়ে সরকারের যদিও বিভিন্ন পদক্ষেপ রয়েছে তাছাড়াও আরও বেশি পরিমাণ জনবল নিয়োগ করে খাদ্যে যারা ভেজাল মেশায় তাদের চিহ্নত করে শাস্তির আওতায় আনা প্রয়োজন বলে আমি মনে করি ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য